What is the Dhaka Stock Exchange (DSE) ? | শেয়ার বাজার কি? - পর্ব-০১ | Biniogkari | Dhaka Stock Exchange, Stock market investing guide

What is the Dhaka Stock Exchange (DSE) ? | শেয়ার বাজার কি? - পর্ব-০১

What Is the Dhaka Stock Exchange (DSE) ? শেয়ারবাজার (Share Market) কী? আপনি অবশ্যই লোকদের প্রায়শই এটি বলতে দেখেছেন। এবং প্রায়শই আপনি ইন্টারনেটের মাধ্যমে শেয়ার বাজার (Dhaka Stock Exchange) সম্পর্কিত পোস্ট দেখতে পান তবে, আপনি কি জানেন যে বেশির ভাগ পোস্ট আপনাকে পুঁজিবাজার (Pujibazar) বা শেয়ার বাজার (Dhaka Stock Exchange Market) সম্পর্কে সঠিক তথ্য দেয় না, কেবলমাত্র অর্ধেক অসম্পূর্ণ তথ্য ভরপুর যা আপনাকে দ্বিধায় ফেলে দিবে।

আমাদের পোস্টটি আজ শেয়ার বাজার Dhaka Stock Exchange(DSE) সম্পর্কে সমস্ত তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করবে, যার মাধ্যমে আপনি শেয়ার বাজার সম্পর্কে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন এবং শেয়ার বাজার সম্পর্কে ভাল তথ্য পেতে পারেন। সুতরাং দেরি না করে শুরু করা যাক।


Dhaka Stock Exchange


এক নজরে দেখে নিন

শেয়ার বাজার কি?

টিপস

Bangladesh Stock Market-DSE | পর্ব-০১



শেয়ারবাজার কী?


Dhaka Stock Exchange

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ আমাদের দেশে কোম্পানি আইন ১৯৯৪ সালের অধীনে নিবন্ধিত একটি সরকারি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। আমরা স্টক এক্সচেঞ্জ বলতে বুঝি, যেখানে শেয়ার, মিচুয়াল ফান্ড , ডিবেঞ্চার , সরকারি এবং প্রাইভেট বন্ড, ইত্যাদি লেনদেন করা হয়। একটু সহজ কথায় বলতে গেলে, স্টক এক্সচেঞ্জ কে আমরা বাজারের সাথে তুলনা করতে পারি। আপনি একটু খেয়াল করে দেখবেন যে, বাজারে বিভিন্ন ধরনের পণ্য যেমন ধরুন, সবজি, মাংস, মসলা, বাজার ইত্যাদি সেক্টরে ভাগ করা থাকে । ঠিক তেমনি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (Dhaka Stock Exchange) কোম্পানির শেয়ার গুলো ঠিক সেই রকমের সেক্টরে ভাগ করা থাকে। যেমন ধরুন , ব্যাংকিং (Bank) ,ইঞ্জিনিয়ারিং (Engineering), ফিনান্সিয়াল (Financial), পাওয়ার এবং শক্তি (Power and Oil) সেক্টর ইত্যাদি । যেখান থেকে একজন সাধারণ বিনিয়োগকারী তার পছন্দের প্রোডাক্টটি অথবা শেয়ারটি ক্রয় বিক্রয় করে থাকে।


উপরক্ত সকল তথ্য এগুলো হলো কোন বই থেকে গৃহীত সংজ্ঞা। এখন আমার দৃষ্টিকোণ থেকে শেয়ার বাজারের (sharebazar) সংজ্ঞা হল বাঘ-সিংহের মধ্যে লড়াই। যেখানে সাধারণ বিনিয়োগকারী হলো “বিড়াল “। যাই হোক, সহজ কথায় বলতে গেলে বিভিন্ন কোম্পানির মালিক-পরিচালকের মধ্যে আর্থিক প্রতিযোগিতা আর সাধারণ বিনিয়োগকারী হলো “ বলির পাঠা ” কথাটি হাস্যকর... মনে হলেও যুক্তিসংগত। আশা করছি আপনি বুঝতে পেরেছেন। ক্যাপিটাল মার্কেট (Capital Market) সাধারণত দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রথমত প্রাইমারি মার্কেট দ্বিতীয়ত সেকেন্ডারি মার্কেট।





প্রাইমারি মার্কেট (Primary Market)


Biniogkari

নতুন শেয়ার ইস্যু মার্কেট হিসাবে পরিচিত প্রথম সিকিওরিটিজ ট্রেডিং মার্কেট।


এটি প্রাথমিক পাবলিক শেয়ার অফার গ্রহণ করে।



সেকেন্ডারি মার্কেট (Secondary Market)


Biniogkari

আমাদের দেশের পুঁজিবাজার সাধারণত কতগুলো প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে গঠিত যেমন ধরুন,


তালিকাভুক্ত কোম্পানি অথবা ইস্যুয়ার (The listed company or issuer),এসইসি(SEC) ব্রোকার ফর্ম (Broker formসিডিবিএল (CDBL)মার্চেন্ট ব্যাংকভ (Merchant Bank)অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি (Asset Management Company)trust কাস্টোডিয়ান (rust custodian) আন্ডার রাইটার (Underwriter)ইস্যু ম্যানেজার(Issue Manager)ক্রেডিট রেটিং কোম্পানি (Credit rating company)



শেয়ার বাজার সম্পর্কে আমরা তিনটি পর্বে বিভক্ত করাছি। আজকের পোস্টটি প্রথম পর্ব-০১। এই পর্বে আমরা সাধারন কিছু বিষয়ে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করাছি। আসা করছি পরবর্তী পর্বে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করা হবে। সেই পর্যন্ত "বিনিয়োগকারী.কম ” সঙ্গে থাকবেন।


আমি যতটুক জানি ততটুকু শেয়ার করার চেষ্টা করলাম আশা করছি আপনাদের ভালো লেগেছে। ( বিনিয়োগকারী.কম) শেয়ার মার্কেট সম্পর্কে গণসচেতনতা মুলক পোস্ট করার চেষ্টা করছে। শুধুমাত্র নতুন বিনিয়োগকারীদের জন্য। যারা শেয়ার (Share Market) মার্কেটে জুয়াড়ি মনোভাব নিয়ে বিশ্লেষণ করেন তাদের থেকে যত দূরে থাকবেন ততোই ভালো। একটি কথা সবসময় মনে রাখবেন "অর্থ আপনার সিদ্ধান্ত ও আপনার"





Dhaka Stock Exchange Market - DSE Stock Market Investing Guide FAQ's

Dhaka Stock Market আমাদের দেশে কোম্পানি আইন ১৯৯৪ সালের অধীনে নিবন্ধিত একটি সরকারি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। আমরা Dhaka Stock Market বলতে বুঝি, যেখানে শেয়ার, মিচুয়াল ফান্ড (Mutual funds), ডিবেঞ্চার (Debenture), সরকারি এবং প্রাইভেট বন্ড (Govt and Private Bonds), ইত্যাদি লেনদেন করা হয়। একটু সহজ কথায় বলতে গেলে,Dhaka Stock Market কে আমরা বাজারের সাথে তুলনা করতে পারি। আপনি একটু খেয়াল করে দেখবেন যে, বাজারে বিভিন্ন ধরনের পণ্য যেমন ধরুন, সবজি, মাংস, মসলা, বাজার ইত্যাদি সেক্টরে ভাগ করা থাকে । ঠিক তেমনি Dhaka Stock Market (Dhaka Stock Exchange) কোম্পানির শেয়ার গুলো ঠিক সেই রকমের সেক্টরে ভাগ করা থাকে। যেমন ধরুন , ব্যাংকিং (Bank) ,ইঞ্জিনিয়ারিং (Engineering), ফিনান্সিয়াল (Financial), পাওয়ার এবং শক্তি (Power and Oil) সেক্টর ইত্যাদি। যেখান থেকে একজন সাধারণ বিনিয়োগকারী তার পছন্দের প্রোডাক্টটি অথবা শেয়ারটি ক্রয় বিক্রয় করে থাকে। বিস্তারিত জানতে এইখানে ক্লিক করুন

বাংলাদেশে ২টি শেয়ার বাজার (Share Bazar) আছে। একটি হল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (Dhaka Stock Exchange Market) অন্যটি চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ-সিএসই (CSE - Chittagong Stock Exchange)। ঢাকার শেয়ারবাজার (Share Bazar) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (Dhaka Stock Market) নিয়ে গঠিত। এটি দেশের বৃহত্তম শেয়ার বাজার (Share Bazar)। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (Dhaka Stock Market) রাজধানী ঢাকার প্রধানতম বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিলে অবস্থিত। বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের পূর্বেই ১৯৫৬ সালে ঢাকা শেয়ার মার্কেটের কার্যক্রম শুরু হয়। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) ১৯৯৫ সালের ১০ অক্টোবর চট্টগ্রাম থেকে শুরু হয়। এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্যগণ ১৯৯৫ সালের জানুয়ারিতে সরকারের কাছে আবেদন করলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিস এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন কমিশন ১৯৯৫ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি দেশের দ্বিতীয় স্টক এক্সচেঞ্জ হিসেবে এর অনুমোদন দেন। বর্তমানে অনলাইন এ শেয়ার কেনা বেচা হয়।

ইসলামী দৃষ্টিকোণ থেকে পুঁজিবাজারে (Puji Bazar) শেয়ার লেনদেন কি হালাল-হারাম? সবার মনে বিভ্রান্তির শেষ নেই, অনেকে স্মার্ট বিনিয়োগকারী বলছেন - হ্যাঁ!। আবার অনেক সাধারন বিনিয়োগকারী বলছেন - না!। বিস্তারিত জানতে এইখানে ক্লিক করুন

স্টক মার্কেটে সূচক হল একটি স্ট্যান্ডার্ড পরিসংখ্যান বা পরিমাপ যার মাধ্যমে শেয়ার বাজারের সমস্ত স্টকের পরিস্থিতি উপস্থাপন করা হয়। পুরো শেয়ার বাজারের সামগ্রিক অগ্রগতি দেখার জন্য এই পরিমাপটি একটি গতি মিটারের মতো ব্যবহার করা হয়।

মনে রাখবেন যে এমনকি সেরা সিকিউরিটিজ/শেয়ারের ক্ষেত্রেও স্বল্পমেয়াদী বিপর্যয় হতে পারে। আপনার বিনিয়োগগুলিকে দীর্ঘ সময়ের জন্য ধরে রাখার ক্ষমতা থাকা গুরুত্বপূর্ণ৷ গবেষণায় দেখা গেছে যে বিনিয়োগ সঠিকভাবে সময়োপযোগী এবং শক্তিশালী মৌলিক বিষয়ের উপর ভিত্তি করে দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগকারীদের জন্য অত্যন্ত লাভজনক হয়েছে।

বিনিয়োগকারীদের সুবিধার্থে মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১) অনলাইনে বেনিফিশিয়ারি ওনার্স অ্যাকাউন্ট (বিও হিসাব) খোলার ব্যবস্থা করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) । বর্তমানে একেক ব্রোকারেজ হাউস বিও হিসাব খোলার (Bo Account Opening) ক্ষেত্রে একেক রকম ফি নেয়। ব্রোকারেজ হাউস ভেদে এ ফি ৫০০ - ১০০০ টাকা পর্যন্ত হবে। তবে অনলাইনে বিও অ্যাকাউন্ট খোলার (Bo Account Opening) ক্ষেত্রে এ ফি হবে সর্বজনীন। মাত্র ৪৫০ টাকা। অর্থাৎ মাত্র ৪৫০ টাকা দিয়ে বিনিয়োগকারীরা ঘরে বসেই তাঁদের পছন্দের ব্রোকারেজ হাউস থেকে বিও অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। ব্রোকারেজ হাউস কমিশন সম্পর্কিত তথ্য জানতে হলে, এইখানে ক্লিক করুন

আমার দেখা মতে বিনিয়োগের সম্পর্কিত সর্বশ্রেষ্ঠ বই ❝ The Intelligent Investor ❞ by Benjamin Graham (Author)।

যতক্ষণ না আপনি বিনিয়োগ সংক্রান্ত সমস্ত প্রাসঙ্গিক তথ্য বুঝতে না পারছেন ততক্ষণ আপনার টাকা জমা করবেন না। কোম্পানির বার্ষিক প্রতিবেদন, ইপিএস (প্রতি শেয়ার উপার্জন), অ্যাকাউন্ট এবং অন্যান্য বিবৃতি বিশ্লেষণ করার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করুন শিল্প, দেশ এবং অন্য কোথাও যা ঘটছে তা আপনার বিনিয়োগের উপর প্রভাব ফেলতে পারে। আপনি যে শেয়ারগুলি কিনতে বা বিক্রি করতে চান সে সম্পর্কে সর্বশেষ বাজার (share bazar) তথ্য পেতে আপনার বিনিয়োগ উপদেষ্টা/ব্রোকারের সাথে পরামর্শ করুন৷ গুজব থেকে তোলা যেকোন বিষয় নিয়ে সন্দিহান হোন, বিশেষ করে যদি আপনি তাদের পছন্দ যুক্তিযুক্তভাবে ব্যাখ্যা করতে না পারেন৷ বিস্তারিত জানতে এইখানে ক্লিক করুন

স্টক মার্কেটের (Stock Market) শেয়ারগুলি সাধারণত মার্কেট লটে কেনা-বেচা হয়, যেগুলো ট্রেড করা সহজ। মার্কেট লটের থেকে কম শেয়ারের সংখ্যা একটি বিজোড় লট করে। বিজোড় লট সাধারণত বোনাস বা অধিকার সমস্যা থেকে উদ্ভূত হয়।

সার্কিট ব্রেকার হল সেই ইন্সট্রুমেন্টের সার্কিট ব্রেকার বেস প্রাইস থেকে ইনকামিং অর্ডারের দামের (শতাংশ হিসাবে নির্দিষ্ট করা) সর্বোচ্চ অনুমোদিত বিচ্যুতি। সার্কিট ব্রেকার মূল্য লঙ্ঘন করার আদেশের ফলে আদেশ প্রত্যাখ্যান করা হবে।